,

‘ফাঁসাতে মিথ্যা ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ করি’

জেলা প্রতিনিধি, গোপালগঞ্জ:  ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে দ্বন্দ্বের জের ধরে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে থানায় মিথ্যা ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ করেন এক নারী। পরে ঘটনা মিথ্যা স্বীকার করে অভিযোগ প্রত্যাহার করে নেন ওই নারী।

গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলার পারুলিয়া ইউনিয়নের শিবপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে।

সম্প্রতি ওই নারীর মিথ্যা বক্তব্য নিয়ে ‘জনতা টিভি’ নামে একটি অনলাইন টিভি চ্যানেলে একটি ভিডিও ভাইরাল হয়। এতে এলাকার সাধারণ মানুষের মাঝে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।

জানা গেছে, গত ২৫ জুন ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে উপজেলার শিবপুর গ্রামের নবু শেখের ছেলে অমিত শেখ ও রাজা কাজীর ছেলে নাহিদ কাজীর মধ্যে বাকবিতন্ড হয়। এ সময় প্রতিবেশি টুটুল মোল্যা এগিয়ে আসলে নবু শেখের স্ত্রী আসমা বেগমের সাথে কথা কাটাকাটি হয়। এতে আসমা বেগম ক্ষিপ্ত হয়ে ওইদিন কাশিয়ানী থানায় টুটুল মোল্যার বিরুদ্ধে একটি মিথ্যা ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ দায়ের করেন এবং হাসপাতালে গিয়ে ভর্তি হন।

ওই নারী বলেন, ‘আমার ছেলেদের সাথে প্রতিবেশি টুটুল মোল্যার কথা কাটাকাটি হয়। আমি রাগ করে থানায় গিয়ে টুটুল মোল্যার বিরুদ্ধে মিথ্যা কথা বলে একটি অভিযোগ করি। পরে কাশিয়ানী হাসপাতালে গিয়ে ভর্তি হই। সেখানে সাংবাদিকরা গিয়ে আমার কাছে ঘটনা সম্পর্কে জানতে চাইলে আমি তাদের কাছে টুটুল মোল্যার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করি। এ জন্য আমি আন্তরিকভাবে দুঃখিত।’

পারুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মকিমূল ইসলাম মকিম বলেন, ‘ওই নারীর অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যায়নি। পরে ওই নারী থানায় করা অভিযোগ স্বেচ্ছায় প্রত্যাহার করে নেন এবং ভুল স্বীকার করে এলাকাবাসীর কাছে ক্ষমা চান।’

কাশিয়ানী থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) নুরুল আনোয়ার অভিযোগ প্রত্যাহারের কথা স্বীকার করে বলেন, ‘ওই থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। তদন্ত করে অভিযোগের কোন সত্যতা পাওয়া যায়নি। ওই নারী ভুল স্বীকার করে অভিযোগ তুলে নিয়েছেন।’

এই বিভাগের আরও খবর


AllEscort