,

৩০ বছর ধরে ভাত না খেয়ে আছিয়া!

জেলা প্রতিনিধি, কিশোরগঞ্জ: বাংলাদেশের সিংহভাগ মানুষের প্রধান খাবার ভাত। বাড়িতে ভাত আছে কিন্তু খায় না এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। কিন্তু জন্মের পর থেকে ভাত না খেয়েও দীর্ঘ ত্রিশ বছর পার করলেন কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীর গৃহবধূ আছিয়া।

এ নিয়ে সাধারণ মানুষের কাছে কৌতূহলের শেষ নেই।

গৃহবধূ আছিয়া আক্তার (৩০)। উপজেলার জালালপুর ইউনিয়নের উওর চরপুক্ষিয়া গ্রামের বাসিন্দা। কথা বলে জানা যায়, জন্মের পর থেকেই কোন দিনই ভাত মুখে নেয়নি আছিয়া। অনেক চেষ্টা করা হয়েছে কিন্তু কিছুতেই কাজ হয়নি। গৃহবধূর বিচিত্র জীবনধারণ দেখার জন্য বিভিন্ন স্থান থেকে মানুষ বাড়িতে আসেন। আছিয়া দুই মেয়ে ও এক ছেলে সন্তানের জননী।

আছিয়া আক্তারের মা হুসনা বলেন, আছিয়ার জন্মের পরেই দুধ ভাতের সময় তার মুখে দুধ দিয়ে নরম করে ভাত দিলে সে নড়াচড়া করে ফেলে দেয় এবং বমি করতে থাকে। এভাবে বিভিন্ন সময় চেষ্টা করেও ভাত খাওয়ানো সম্ভব হয়নি তাকে। কতো ডাক্তার কবিরাজ দেখাইছি, কিছুতেই কাজ হয়নি। বরং ভাত দেখলে সে অসুস্থ হয়ে পড়ে। ডাক্তারেরা বলেছেন, সে যেভাবে ভালো থাকে সেভাবেই তাকে খাবার দিতে।

গৃহবধূ আছিয়া আক্তার বলেন, আমি ভাত দেখতেই পারি না। ভাত দেখলেই অস্বস্থি বোধ করি ও পরিবারকে ভাত রান্না করে দিতেও কষ্ট হয় আমার। কিন্তু বাধ্য হয়েই ভাত রান্না করে দিতে হচ্ছে। ভাত না খেয়ে এভাবেই আমি সুস্থ আছি। তেমন কোন রোগবালাই হয় না। রুটি, কলা, চিড়া, দই ফলমূল খেয়ে বেঁচে আছি। বিয়ের পর এটা নিয়ে নানা কথা শুনতে হলেও সময়ের সাথে সাথে এখন সবকিছু স্বাভাবিক হয়েছে।

এই বিভাগের আরও খবর


AllEscort