,

মামুনুল হকের বিরুদ্ধে মামলার আবেদন আমলে নেয়নি আদালত

নিজস্ব প্রতিবেদক: ভাস্কর্যবিরোধী বক্তব্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়ার অভিযোগে হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হকের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলার আবেদন আমলে নেয়নি আদালত।

বৃহস্পতিবার (১০ ডিসেম্বর) সকালে বাংলাদেশ সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক আসসাম জগলুল হোসেনের আদালতে আবেদনটি জমা দেন বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা ও নির্বাহী সভাপতি অ্যাডভোকেট আবদুল মালেক। মামলার আবেদন করলে, আদালত জানায় রাষ্ট্রপক্ষ বিষয়টি দেখবে।

আদালত সূত্রে জানা যায়, ‘আজ বৃহস্পতিবার (১০ ডিসেম্বর) ঢাকার সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক আসসাম জগলুল হোসেনের আদালতে মামলার আবেদন করেন বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা ও নির্বাহী সভাপতি এডভোকেট আবদুল মালেক। তবে মামলাটি আমলযোগ্য ধারায় করায় বিচারক তা ফিরিয়ে দেন। কেননা আমলযোগ্য ধারার মামলা সাধারণত থানায় করতে হয়।

মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, গত ১৩ নভেম্বর বিএমএ মিলনায়তনে বাংলাদেশ যুব খেলাফত মজলিসের ঢাকা মহানগর শাখার সমাবেশে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণের বিরোধিতা করে মামুনুল হক বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য গড়তে দেয়া হবে না। প্রয়োজনে লাশের পর লাশ পড়বে। আবার শাপলা চত্বর হবে। ‘

সেই বক্তব্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। মামুনুল হকের বক্তব্যের পর একটি শ্রেণি বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণের বিরোধিতা করে একের পর এক বক্তব্য দিচ্ছে। দেশে অস্থিতিশীল পরিবেশ পরিস্থিতি সৃষ্টি হচ্ছে।

গত সোমবার মামুনুল হকের বিরুদ্ধে বঙ্গবন্ধুর ভাবমূর্তি ও সম্মান ক্ষুণ্ণের অভিযোগে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলার আবেদন করেন আবদুল মালেক। একইদিন মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের কেন্দ্রীয় সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুল বাদী হয়ে মামুনুল হকসহ তিনজনের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলার আবেদন করেন।

এই বিভাগের আরও খবর


AllEscort