,

বশেমুরবিপ্রবিতে শিক্ষার্থীদের অবস্থান কর্মসূচি মশাল মিছিল

জেলা প্রতিনিধি, গোপালগঞ্জ: গোপালগঞ্জে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) ছাত্রীকে দলবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনায় ক্যাম্পাসে মশাল মিছিল ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।

শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় তারা এ মিছিল করে গোটা ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করেন। এ সময় তারা ধর্ষকদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি করে বিভিন্ন শ্লোগান দেয়।

এর আগে বিকাল ৪টা থেকে শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে এসে জড় হয় এবং অবস্থান কর্মসূচি পালন করে।

বুধবার জেলা প্রশাসনের দেওয়া ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ধর্ষকদের গ্রেফতার করে জনসম্মুখে তাদের নাম প্রকাশের প্রতিশ্রæতির বাস্তবায়ন না হওয়ায় দ্বিতীয় দিনের মতো তারা এ কর্মসূচি পালন করে।

শুক্রবার বেলা ১টার দিকে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে ৪ দফা দাবি পেশ করেছেন। বেলা ১১টা থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে সাধারণ শিক্ষার্থীরা জড়ো হয়। এ সময় শিক্ষার্থীদের দাবির সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করে ধর্ষকদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি কার্যকর করতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় ভূমিকা রাখার আশ্বাস দেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. একিউএম মাহবুব।

চার দফা দাবি হলো- ধর্ষকদের শনাক্ত ও গ্রেফতার করে জনসম্মুখে তাদের নাম প্রকাশ এবং দ্রæত সময়ের মধ্যে সর্বোচ্চ শাস্তি কার্যকর করা। বৃহস্পতিবার ধর্ষকদের বিচারের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর ন্যাক্কারজনক হামলা চালিয়ে উপাচার্যসহ শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের আহত করার সঙ্গে জড়িতদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় নিয়ে আসা। ছাত্রী ধর্ষণের ঘটনা এবং আন্দোলনরত শিক্ষার্থী ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের ওপর হামলার ঘটনায় স্থানীয় প্রশাসন, পুলিশ ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের ভূমিকা সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী সরাসরি অথবা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অবগত করা। ক্যাম্পাস ও বাইরে অবস্থানরত শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা এবং বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে কর্তৃপক্ষের অনুমতি ব্যতিরেকে বহিরাগতদের প্রবেশাধিকার নিষিদ্ধ করা।

শুক্রবার বেলা ১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে এ উপলক্ষে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষার্থীরা এ সব দাবি তুলে ধরেন। সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের এমএ শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী আব্দুল্লাহ আল রাজু।

এর আগে প্রক্টরিয়াল বডি ও শিক্ষক সমিতির সঙ্গে এক জরুরি সভায় মিলিত হন উপাচার্য অধ্যাপক ড.একিউএম মাহবুব। সভা শেষে উপাচার্য ও শিক্ষক নেতৃবৃন্দ আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেন এবং তাদের যৌক্তিক দাবির প্রতি সমর্থন জানিয়ে একাত্মতা ঘোষণা করেন।

এ সময় আইন অনুষদের ডিন ও প্রক্টর ড. রাজিউর রহমান, শিক্ষক সমিতির সভাপতি ড. কামরুজ্জামান, প্রচার সম্পাদক ড. মো. সাদ্দাম হোসেন প্রমুখ অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন।

উপাচার্য অধ্যাপক ড. একিউএম মাহবুব ধর্ষকদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করে বলেন, এ ধরনের পৈচাশিক ঘটনার নিন্দা জানানোর মত ভাষা আমার নেই। শিক্ষার্থীদের যৌক্তিক দাবি আমরা মেনে নিয়েছি। জাতির পিতার নামে প্রতিষ্ঠিত বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলনের করে এ বিচার আদায় করবে।

তিনি আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের হামলাসহ শিক্ষকদের আহত করার ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করে দোষী আইনের আওতায় আনার দাবি জানান। উপাচার্য শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ায় মনোনিবেশ করে পরীক্ষার প্রস্তুতি নেয়ার জন্য অনুরোধ জানান।

গোপালগঞ্জ সদর থানার ওসি মো. মনিরুল ইসলাম বলেন, ‘ইতোমধ্যে তিনজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। দ্রæত সময়ের মধ্যে ধর্ষণের সঙ্গে জড়িতদের গ্রেফতার করা সম্ভব হবে। আদালতে ভিকটিমের জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়েছে।’

এই বিভাগের আরও খবর


AllEscort