,

পরাজিত প্রার্থীর সমর্থকদের হামলায় মিলাদ পন্ড

জেলা প্রতিনিধি, গোপালগঞ্জ: গোপালগঞ্জে পরাজিত মেম্বার প্রার্থীর সমর্থকদের হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনায় এক মৃত নারীর মিলাদ ও দোয়ার অনুষ্ঠান পণ্ড হয়ে গেছে। এ ঘটনায় এক বৃদ্ধাসহ অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন। গুরুতর আহত দুই জনকে গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

শুক্রবার বাদ জুম্মা গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার করপাড়া ইউনিয়নের আড়ুয়া কংশুর ওই গ্রামের নূর ইসলাম মোল্লার মৃত স্ত্রী রাজিয়া বেগমের মিলাদ ও দোয়া মাহফিলের অনুষ্ঠান হওয়ার কথা ছিল।

ক্ষাতিগ্রস্ত পরিবার ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার রাতে করপাড়া ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের বিজয়ী মেম্বার প্রার্থী ইয়াছির আরাফত নির্বাচনে জয়ী হয়ে প্রীতিভোজের আয়োজন করেন। প্রার্থীর লোকজন বিকেলে অনুষ্ঠানের জন্য বাজার করতে যাওয়ার পথে পরাজিত মেম্বার প্রার্থী মো. মেজবাহ সরদারের লোকজন তাদের মারপিট করে। এ ঘটনার পর পরাজিত ও বিজয়ী মেম্বার প্রার্থীর লোকজন উভয় পক্ষের ৪টি বাড়িতে হামলা করে ভাঙচুর করে। এর মধ্যে বিজয়ী মেম্বার প্রার্থীর আত্মীয় নূর ইসলাম মোল্লার বাড়িতে হামলা ও ভাঙচুর করা হয়। শুক্রবার ওই বাড়িতে তার মৃত স্ত্রীর মিলাদ ও দোয়ার অনুষ্ঠান হওয়ার কথা ছিল। তার বাড়িতে হামলা করে অনুষ্ঠানের জন্য আনা চেয়ার, টেবিল, প্লেটসহ অন্যান্য জিনিসপত্র ভাঙচুর করা হয়। এতে ওই অনুষ্ঠানটি পণ্ড হয়ে যায়। হামলা ও পাল্টা হামলায় ঘটনায় উভয়পক্ষের অন্তত ১০ জন আহত হয়। এর মধ্যে দুই জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

বিজয়ী মেম্বার প্রার্থী ইয়াছির আরাফত বলেন, পরাজিত মেম্বার প্রার্থী মো. মেজবাহ সরদারের লোকজন আমার লোকজনের তিনটি বাড়ি ঘরে হামলা করেছে। এতে আমার বেশ কয়েকজন লোক আহত হয়েছেন। এ ছাড়া তাদের হামলায় আমার মৃত এক আত্মীয়ের দোয়া অনুষ্ঠানটি পণ্ড করে দিয়েছে।

পরাজিত মেম্বার প্রার্থীর আত্মীয় সাবেক মেম্বার দেলোয়ার সরদার বলেছেন, বিজয়ী মেম্বার প্রার্থীর লোকজন আমাদের লোকজনের বাড়িতে হামলা করেছে। আমাদের প্রার্থীর সমর্থকের দোকানে হামলা ও লুটপাট করেছে।

এ ব্যাপারে গোপালগঞ্জ সদর থানার ওসি মো. মনিরুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেছেন, উভয়পক্ষ থানায় অভিযোগ দিয়েছে। বিষয়টি তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এই বিভাগের আরও খবর


AllEscort