,

দেশে খাদ্যের জন্য হাহাকার নেই

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা (ছবি : সংগৃহীত)

নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, করোনা নিয়ন্ত্রণে রেখে দেশের মানুষের জীবনযাত্রা সচল রাখতে সক্ষম হয়েছি। অনেক উন্নত দেশেও (করোনাকালে) খাদ্যের অভাব, দুর্ভীক্ষ অবস্থা। বাজারে জিনিস পাওয়া যায় না। লন্ডনে সুপারমার্কেটে সাপ্লাই নেই। খাবার জিনিস পর্যন্ত পাওয়া যায় না। তবে বাংলাদেশের কোনো গ্রামেও খাদ্যের হাহাকার নেই।

সংসদ সদস্য একাব্বর হোসেনের মৃত্যুতে সংসদে আনা শোক প্রস্তাবের ওপর আলোচনাকালে বুধবার (১৭ নভেম্বর) প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন।

বুধবার সংসদের বৈঠকের শুরুতে স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী শোক প্রস্তাব উত্থাপন করেন। পরে সর্বসম্মতিক্রমে তা গ্রহণ করা হয়। এর আগে সংসদ নেতা শেখ হাসিনাসহ সরকারি ও বিরোধী দলের সদস্যরা শোক প্রস্তাবের ওপর আলোচনা করেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ভবিষ্যতে নেতৃত্ব দেওয়ার মতো আদর্শিক, সৎ ও নিষ্ঠাবান যারা রয়েছে তাদের মধ্যে একাব্বরও একজন ছিলেন। আমাদের পরে আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব দেওয়া ও দেশের উন্নয়নে অবদান রাখার জন্য যাদের তৈরি করছিলাম তাদের একজনকে হারালাম। এই মৃত্যু দেশ ও আওয়ামী লীগের রাজনীতির জন্য অনেক বড় ক্ষতি।

চলমান সংসদের কোনো সংসদ সদস্য মারা গেলে সংসদের বৈঠকে শোক প্রস্তাব উপস্থাপনের পর তা নিয়ে আলোচনা করেন সংসদ সদস্যরা। শোক প্রস্তাবের ওইদিন সংসদের অন্য কার্যক্রম স্থগিত রেখে বৈঠক মুলতুবি করা হয়।

একাব্বর হোসেনকে স্মরণ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের উন্নয়নের নিষ্ঠাবান রাজনীতিক কতটা প্রয়োজন তা মর্মে মর্মে উপলব্ধি করি। একাব্বর হোসেন ছিলেন এমন একজন নিষ্ঠাবান, সৎ ও নিবেদিত প্রাণ। একাব্বর থাকলে এদেশের রাজনীতিতে অনেক অবদান রাখতে পারতেন। কারণ, তার সততা, একনিষ্ঠতা ও দেশপ্রেম। একজন রাজনীতিবিদের মধ্যে যা সব থেকে বেশি প্রয়োজন।

তিনি বলেন, আমাদের আবারো সেই শোকপ্রস্তাব নিয়ে আলোচনা করতে হচ্ছে। এটা অত্যন্ত দুঃখজনক। প্রতিদিনই তার চিকিৎসার খবর নিচ্ছিলাম। গতকাল খবর পেলাম তার আবার হার্ট অ্যাটাক হয়েছে। লাইফসাপোর্টে নেওয়া হয়েছে। তখনই আমার সন্দেহ হলো আর বোধহয় ফিরে আসবে না। সেই ঘটনাটাই ঘটল।

আত্মার মাগফিরাত কামনা ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০১৯ সাল থেকে এ পর্যন্ত আমরা সংসদের ২০ জন সংসদ সদস্যকে হারিয়েছি। বলতে গেলে প্রতিবারই সংসদ শুরু করতে হতো শোকপ্রস্তাব নিয়ে। কিন্তু শোকপ্রস্তাব এবার নেওয়া হলেও কোনো এমপির মৃত্যুর জন্য আলোচনা করার দরকার হয়নি বলে আশ্বস্ত ছিলাম। স্বস্তি নিয়ে শুরু করলাম ঠিকই, কিন্তু ভয়াবহ আঘাতটা এলোই।

তিনি বলেন, একটি সংসদে এতজন মানুষের মৃত্যু। সত্যিই যেন অস্বাভাবিক ঘটনা আমাদের জীবনে ঘটে গেল। যারা দেশের মানুষের জন্য কাজ করছে তারাই যেন একে একে চলে যাচ্ছেন। একাব্বর হোসেন সক্রিয় একজন ছাত্রলীগ কর্মী ছিলেন। এমন একটি সময় তিনি ছাত্রলীগ করতেন যখন সামরিক জান্তা ক্ষমতায় ছিল। সেই সময় কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগ করাটা কঠিন ছিলে। ছাত্র রাজনীতি করাটাও কঠিন ছিল।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, একাব্বর সবসময় সক্রিয় ছিলেন। তিনি আদর্শের প্রতীক ও নিবেদিত প্রাণ ছিলেন। ছিলেন ভালো সংগঠক। দেশ ও জনগণকে অনেক কিছু দিতে পারতেন। ১৯৮১ সালের পর থেকে অনেক ঝড়ঝাপটা পার হয়ে আমাদের চলতে হয়েছে। পদে পদে বাধা। যেখানে সভা করতে গিয়েছি বাধা। মিটিংয়ে বোমা হামলা থেকে শুরু করে মঞ্চ পোড়ানো। অনেক ঘাতপ্রতিঘাতের মধ্যে চলতে হয়েছে। একাব্বরদের মতো আমাদের নিবেদিত কর্মী যারা ছিলেন তারা সব ভয়ভীতি উপেক্ষা করে সমাবেশে যোগ দিয়েছেন। আন্দোলন-সংগ্রাম গড়েছেন। গণতন্ত্রের জন্য দীর্ঘ আন্দোলনে তার ভূমিকা ছিল। কোনো সমাবেশের ডাক দিলেই ছুটে আসতেন। আন্দোলনের কর্মসূচি বাস্তবায়নে একাগ্রচিত্তর হয়ে কাজ করেছেন। তার অবদানটি কখনো ভুলার নয়।

তিনি বলেন, জনগণের সঙ্গে একাব্বরের গভীর সম্পর্ক ছিল। আত্মার সম্পর্ক ছিল। যে কারণে সহজভাবে নির্বাচনে জিতে আসতেন। মির্জাপুরের ওই এলাকায় আমাদের অনেক উন্নয়নকাজ হয়েছে। সেখানে উন্নয়নকাজে বাধা দেওয়া বা কোনো ধরনের অনিয়মের সঙ্গে তিনি ছিলেন না। বরং প্রতিটি কাজ যাতে সহজভাবে হয় সেই প্রচেষ্টা তার মধ্যে দেখেছি। টাঙ্গাইলের উন্নয়নে তার বিশেষ আগ্রহ ছিল। প্রতিটি স্থায়ী কমিটিতে তিনি বলিষ্ঠ ভূমিকা রেখেছেন। সড়কের সভাপতি হিসেবে উন্নয়নের ভূমিকা রেখেছে।

বক্তব্যের শুরুতে চলতি সংসদের যেসব এমপি মারা গেছেন তার তালিকা তুলে ধরেন সংসদ নেতা। চলতি সংসদের যারা মারা গেছেন তারা হলেন- কিশোরগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য ও ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, আওয়ামী লীগের এমপি রুশেমা বেগম (মহিলা আসন-৩৪), দেশের সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান ও বিরোধীদলীয় নেতা এইচ এম এরশাদ, চট্টগ্রাম-৮ আসনের মঈনউদ্দীন খান বাদল, গাইবান্ধা-৩ আসনের সংসদ সদস্য মো. ইউনুস আলী সরকার, বাগেরহাট-৪ আসনের মোজাম্মেল হোসেন, বগুড়া-১ আসনের আবদুল মান্নান, যশোর-৬ আসনের ইসমাত আরা সাদেক, পাবনা-৪ আসনের শামসুর রহমান শরীফ, ঢাকা-৫ আসনের হাবিবুর রহমান মোল্লা, সিরাজগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য মোহাম্মদ নাসিম, ঢাকা-১৮ আসনের সাহারা খাতুন, নওগাঁ-৬ আসনের ইসরাফিল আলম, সিলেট-৩ আসনের সরকার দলীয় সংসদ সদস্য মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী। ঢাকা-১৪ আসনের আওয়ামী লীগ দলীয় সংসদ সদস্য আসলামুল হক, কুমিল্লা-৫ আসনের সংসদ সদস্য আব্দুল মতিন খসরু, কুমিল্লা-৭ আসনের অধ্যাপক মো. আলী আশরাফ, সিরাজগঞ্জ-৬ আসনের হাসিবুর রহমান স্বপন, জাপার সংরক্ষিত আসনের এমপি মাসুদা এম রশীদ ও টাঙ্গাইল-৭ আসনের একাব্বর হোসেন।

এই বিভাগের আরও খবর


AllEscort